Latest: ঘটা করে বন্ধ করা হলো চট্টগ্রামের করোনা আইসোলেশন সেন্টার

Latest: ঘটা করে বন্ধ করা হলো চট্টগ্রামের করোনা আইসোলেশন সেন্টার

দীর্ঘ তিন মাস করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গে ভোগা ৭৬৫ জন রোগীকে বিনামূল্যে সুস্থ করে তোলার পর চট্টগ্রাম নগরীর হালিশহরে অবস্থিত করোনা আইসোলেশন সেন্টার বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে করোনা আইসোলেশন সেন্টার, চট্টগ্রামের কার্যক্রমের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মিজানুর রহমান। এছাড়া ছিলেন চট্টগ্রামের বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির, স্বাচিপের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ম ম মিনহাজুর রহমান, আইএমএস গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবুল বশর আবু, মহানগর আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী এবং হালিশহর থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মিজানুর রহমান বলেন, ‘এই আইসোলেশন সেন্টারটি দীর্ঘ তিন মাস সফলতার সঙ্গে কাজ করেছে। এই সফলতা আমাদের একটি শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে। এই আইসোলেশন সেন্টার কীভাবে সফল হলো, তা থেকে আমাদের একটা শিক্ষা নিতে হবে। আমি আশা করবো, এ শিক্ষা স্বাস্থ্য বিভাগের গুণগতমান রক্ষা করার ক্ষেত্রে ভবিষ‌্যতে পদক্ষেপ গ্রহণে কাজে আসবে।’

ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘করোনাকালের শুরুতে প্রতিদিনের ক্রমবর্ধমান রোগীর চাপ সামাল দিতে চট্টগ্রামের সরকারি ব্যবস্থাপনার হাসপাতালগুলোকে বেগ পেতে হয়েছে। মানুষের আহাজারিতে বাতাস ভারী হচ্ছিলো প্রতিনিয়ত। সরকারি আদেশ অনুরোধ এবং রোগী আর স্বজনদের অসহায় আর্তনাদের পরও বেসরকারি হাসপাতালে কোভিড রোগী ভর্তি হতে না পারেনি। সেই দুর্বিসহ আঁধারকালে এই করোনা আইসোলেশন সেন্টার স্বাস্থ্যসেবায় আলো হাতে আঁধারের যাত্রী হয়ে কঠিন এই যাত্রাপথে নেতৃত্ব দিয়েছে। তারা দেখিয়ে দিয়েছে, শুধু মানুষের জন্য কিছু করার অদম্য ইচ্ছাকে পুঁজি করে কোন পূর্ব প্রশিক্ষণ ছাড়াই কীভাবে স্বাস্থ্যসেবায় মানুষের পাশে থাকা যায়।’

স্বাচিপের ডা. আ ম ম মিনহাজুর রহমান বলেন, ‘চট্টগ্রামে করোনার ঘনঘোর অমানিশাকালে এ সেন্টার চট্টগ্রামের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করেছে। এ সেন্টারের সংশ্লিষ্ট সকলেই এ সংগঠনের সাবেক ও বর্তমান নেতা-কর্মী। প্রিয়তম এই দেশ, দেশের মানুষ যখনই কোন সংকটের মুখোমুখি হয়েছে, বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া ছাত্রলীগের কর্মীরাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে।’ 

মহানগর আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক শেখ ইফতেখার সাইমুল বলেন, ‘করোনা সংক্রমণের পর থেকে এই আইসোলশন সেন্টারে কাজ করতে এসে ছাত্রলীগের অনেক নেতা-কর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছে। তবু তারা রোগীদের সেবা করতে পিছপা হয়নি। তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।’

প্রধান উদ্যোক্তা সাজ্জাদ হোসেন এর সভাপত্বিতে অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন প্রধান সমন্বয়ক নুরুল আজিম রনি।

করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রামের সর্বমোট অনুদান ও আয়-ব্যয়ের হিসাব তুলে ধরেন মূখপাত্র জিনাত সোহানা চৌধুরী। 

Source link

Follow and like us:
0
20

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here