Latest: new parliament building of india: খরচ ৮৬১.৯০ কোটি টাকা, ভারতের নতুন সংসদ ভবন তৈরির দায়িত্ব পেল টাটা গোষ্ঠী! – new parliament building of india will be constructed by tata projects at a cost of ₹ 861.90 crore

Latest: new parliament building of india: খরচ ৮৬১.৯০ কোটি টাকা, ভারতের নতুন সংসদ ভবন তৈরির দায়িত্ব পেল টাটা গোষ্ঠী! – new parliament building of india will be constructed by tata projects at a cost of ₹ 861.90 crore

হাইলাইটস

  • ৬১.৯০ কোটি টাকা সর্বনিম্ন দরপত্র দিয়ে এই বরাত জিতে নিয়েছে ‘টাটা প্রজেক্টস’।
  • ওয়ার্ক অর্ডার পাওয়ার ২০-২১ মাসের মধ্যে এই প্রকল্প শেষ করতে হবে।
  • শুধু টাটা গোষ্ঠীই নয়, লারসেন অ্যান্ড টুবরো, সাপুরজি-সহ সাতটি সংস্থা এই প্রকল্পের জন্যে দরপত্র জমা দিয়েছিল।

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: নতুন করে ঢেলে সাজানো হবে ভারতের সংসদ ভবন। আর তার জন্যে এবার সেই প্রকল্পের দায়িত্ব পেলে টানা গোষ্ঠী। সূত্রের খবর, ৮৬১.৯০ কোটি টাকা সর্বনিম্ন দরপত্র দিয়ে এই বরাত জিতে নিয়েছে ‘টাটা প্রজেক্টস’। অর্থাৎ প্রায় ৮৬২ কোটি টাকায় নতুন সংসদ ভবন তৈরির দায়িত্ব তুলে দেওয়া টাটা গোষ্ঠীর হাতে। তবে, টাটা গোষ্ঠীকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ওয়ার্ক অর্ডার পাওয়ার ২০-২১ মাসের মধ্যে এই প্রকল্প শেষ করতে হবে।

তবে, শুধু টাটা গোষ্ঠীই নয়, লারসেন অ্যান্ড টুবরো, সাপুরজি-সহ সাতটি সংস্থা এই প্রকল্পের জন্যে দরপত্র জমা দিয়েছিল। কিন্তু শেষমেশ সবচেয়ে কম টাকায় দরপত্র দিয়ে টাটা গোষ্ঠী এই প্রকল্প করার ছাড়পত্র পেল। এই প্রকল্পের জন্য ৯৪০ কোটি টাকা সর্বাধিক খরচ ধরা হয়েছিল।

উল্লেখ্য, বুধবারই এই নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয় কেন্দ্রীয় পূর্ত মন্ত্রকের পক্ষ থেকে। জানা গিয়েছে, এই নতুন সংসদ ভবন হবে বর্তমান সংসদ ভবনের পাশেই। তবে বর্তমান সংসদ ভবন যেমন গোলাকার, তবে, নতুন ভবন হবে ত্রিকোণাকার। সংসদে থাকবে ৯০০ থেকে ১২০০ সাংসদের বসার আসন। রাষ্ট্রপতি ভবন থেকে ইন্ডিয়া গেট, তিন কিলোমিটার জুড়ে হবে সেন্ট্রাল ভিস্টা।

কিন্তু দেশের এই অর্থনৈতিক অবস্থায় কেন নতুন করে সংসদ ভবন গঠন? পূর্ত দফতরের কর্তাদের কথায়, বর্তমান সাংসদ ভবনটি সংস্কারের প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। সংস্কারের পরে পুরনো ভবনটি অবশ্য অন্য কাজে ব্যবহার করা হবে। উল্লেখ্য, চলতি বছরের শুরুর দিকে, কেন্দ্রীয় সরকার নতুন সংসদ ভবন তৈরির সিদ্ধান্ত নেয়। তবে, সেই সময় সরকারের যুক্তি ছিল, বর্তমান ভবনের কাঠামোটি ব্রিটিশ আমলে তৈরি। ফলে বহুদিন রক্ষণাবেক্ষণ হয়নি, তাই এই ভবনটি অনেকটা মেরামতির প্রয়োজন।

যদিও নতুন সংসদ ভবন নিয়ে বিতর্ক কম হয়নি। নতুন সংসদ ভবনের নকশা তৈরির দায়িত্ব বিনা টেন্ডারে কেন গুজরাটের ‘আর্কিটেক্ট’ বিমল প্যাটেলের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল, তা নিয়ে সংসদে সরব হয়েছিল বিরোধী শিবির৷ এই নকশা তৈরির জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে বিমল প্যাটেলের সংস্থা এইচসিপি-কে ২৩০ কোটি টাকা দেওয়ার কথা বলা হয় ‘কনসালটেন্সি ফি’ হিসেবে৷ এই টাকার পরিমাণ কী ভাবে স্থির করা হয়েছে, তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন বিরোধীরা৷ এই ক্ষেত্রে বিমল প্যাটেলের সংস্থাকে দায়িত্ব দেওয়ার আগে কেন সব দলের সাংসদদের সঙ্গে আলোচনা করা হল না, তা নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভ ব্যক্ত করেছিল বিরোধী শিবির।

বিরোধী শিবিরের দাবি ছিল, গ্লোবাল টেন্ডার না ডেকেই নতুন সংসদ ভবনের নকশা তৈরির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে গেরুয়া শিবিরের ‘স্নেহধন্য’ গুজরাটের নির্মাণ ব্যবসায়ী বিমল প্যাটেলের হাতে। প্রাথমিক ভাবে ৬টি বেসরকারি সংস্থাকে দায়িত্ব দেওয়ার জন্য বাছাই করা হয়েছিল, কিন্তু শেষ পর্যন্ত দায়িত্ব পান এই বিমল প্যাটেলের ‘এইচসিপি ডিজাইন’ সংস্থার ভাগ্যেই, অভিযোগ বিরোধীদের।

জানা গিয়েছে, নতুন সংসদ ভবন তৈরির কাজ শেষ করতে হবে ২০২২ সালের গোড়ার মধ্যে৷ সূত্রের খবর, এই নতুন ইতিহাস গড়ার দিনক্ষণ বেঁধে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ ২৬ জানুয়ারি, ২০২২, নতুন সংসদ ভবনের সম্ভাব্য উদ্বোধনের তারিখও স্থির করে ফেলা হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পরেই৷ দেশের স্বাধীনতার ৭৫ তম বছরে প্রজাতন্ত্র দিবসের দিনই প্রধানমন্ত্রীর হাতে যাতে নতুন সংসদ ভবনের উদ্বোধনের কাজ করা সম্ভব হয়, তা নিশ্চিত করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে সরকারের শীর্ষ স্তর৷

এই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্ট এখানে ক্লিক করুন

Source link

Follow and like us:
0
20

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here