Latest: Nitish Kumar: চিরাগের LJP আদৌ NDA-তে থাকবে কি না, বিজেপিই সিদ্ধান্ত নেবে: নীতীশ – bjp to decide whether chirag paswan’s ljp should be retained in nda, says nitish kumar

Latest: Nitish Kumar: চিরাগের LJP আদৌ NDA-তে থাকবে কি না, বিজেপিই সিদ্ধান্ত নেবে: নীতীশ – bjp to decide whether chirag paswan’s ljp should be retained in nda, says nitish kumar

হাইলাইটস

  • চিরাগ পাসোয়ানের রাজনৈতিক ভাগ্য বিজেপির উপর ছাড়লেন নীতীশ কুমার
  • চিরাগের এলজেপি কি এনডিএতে থাকবে, সিদ্ধান্ত নেওয়ার ভার বিজেপির। বললেন নীতীশ
  • নতুন সরকারের শপথ কবে, সিদ্ধান্ত হতে পারে শুক্রবার এনডিএর বৈঠকে
  • অপরাধ, দুর্নীতি ও গোষ্ঠী দাঙ্গার সঙ্গে কখনোই আপস নয়, জানিয়ে দিলেন নীতীশ কুমার

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: লোক জনশক্তি পার্টি (LJP)-র নেতা, ‘ঘরশত্রু’ চিরাগ পাসওয়ানের বিদ্রোহের আগুনে জেডি(ইউ) যে পুড়ে ছারখার হয়েছে, সেটা আর কেউ না বুঝুক, নীতীশ কুমার হাড়েহাড়ে টের পেয়েছেন। বিজেপিও যে বোঝেনি, তা নয়। নীতীশ কুমারের বিশ্বস্ত লেফটেন্যান্ট, বিহারের উপমুখ্যমন্ত্রী সুশীল কুমার মোদীর হিসেবও বলছে, চিরাগ বিদ্রোহ না করলে নীতীশের জেডি(ইউ) আরও অন্তত ২৫-৩০টি আসন বেশি পেত। সে ক্ষেত্রে এনডিএ’র আসন সংখ্যা ১৫০ ছাড়িয়ে যেত। অর্থাত্‍‌ চিরাগের নীতীশ বিরোধিতা শুধু জেডি(ইউ)-এর নয়, এনডিএ জোটেরও ক্ষতি করেছে। এমতবস্থায় চিরাগের লোক জনশক্তি পার্টি এনডিএ’র শরিক হয়েই থাকবে নাকি এলজেপিকে জোট থেকে বহিষ্কার করা হবে, সে সিদ্ধান্তের ভার বিজেপির উপরই ছেড়ে দিলেন নীতীশ কুমার।

এ নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে চিরাগ বিতর্ক না বাড়িয়ে, তা বিজেপির ঘাড়েই ঠেলে দেন নীতীশ। লোক জনশক্তি পার্টি কেন্দ্রে এনডিএ’র শরিক হলেও বিহার বিধানসভা নির্বাচনে জোটে না থেকে স্বাধীন ভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। আখেরে এলজেপি’র লাভ না হলেও চিরাগ নিজের নাক কেটে অপরের (পুড়ুন নীতীশ কুমার) যাত্রাভঙ্গ করেছেন।

বিজেপির প্রতিশ্রুতি মতো নীতীশ কুমার বিহারের মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন ঠিকই কিন্তু এ বার ক্ষমতার সমীকরণ বদলে যেতে বাধ্য। বিহার নির্বাচনে বিজেপির সাফল্যই ক্ষমতার ভরকেন্দ্র বদলে দেবে। সে দিক থেকে চিরাগের বিদ্রোহের সুফল ঘরে তুলেছে বিজেপি। জেডি(ইউ)-এর আসন কমার বিপরীতে বিজেপির আসন উল্লেখ জনক ভাবে বেড়েছে।

এ হেন পরিস্থিতিতে বিজেপি নেতৃত্ব চিরাগের এই বিদ্রোহকে ক্ষমার চোখে দেখে কাছে টেনে নেয় কি না, তা আর কয়েক দিনের মধ্যেই পরিষ্কার হয়ে যাবে। বৃহস্পতিবারের আগে চিরাগ প্রসঙ্গে একটি কথাও বলেননি নীতীশ কুমার। বিহার নির্বাচনে জয়ের পর বৃহস্পতিবার প্রথম সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে নীতীশ কুমার জানান, শুক্রবার এনডিএ’র চার শরিককে নিয়ে আনুষ্ঠানিক একটি বৈঠক রয়েছে। সেখানে তাঁর শপথগ্রহণের দিনক্ষণ নিয়ে কথা হবে।

আরও পড়ুন:‘তৃণমূলে থাকতে অসুবিধা হলে কংগ্রেসের দরজা খোলা’, শুভেন্দুকে বার্তা অধীরের?

শরিকদের প্রসঙ্গ উঠতেই সাংবাদিকরা তাঁকে প্রশ্ন করেন, কেন্দ্রে এনডিএ’র জোট থেকে কি এ বার লোক জনশক্তি পার্টিকে বের করে দেওয়া হবে? নীতীশ হাসতে হাসতে বলেন, ‘আপনারা কি তেমন পরামর্শই দিচ্ছেন?’ এর পরেই বিষয়টিতে সিরিয়াস হয়ে জেডি(ইউ)-এর জাতীয় সভাপতি বলেন, ‘যে কোনও ক্ষেত্রে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণের দায়িত্ব বিজেপির। এ বিষয়ে আমার নিজের কিছু বলার নেই।’

আরও পড়ুন: কার নির্দেশে এমন গণনা, NDA জেতার নেপথ্যে কমিশন? গুরুতর অভিযোগ তেজস্বীর!

সদ্য অনুষ্ঠিত বিধানসভা নির্বাচনে নীতীশের জেডি(ইউ) ৪৩টি আসন পেয়েছে। ২০১৫ সালে নীতীশের দল পেয়েছিল ৭১টি আসন। সে বার অবশ্য আরজেডি ও কংগ্রেসের সঙ্গে তিনি জোট বেঁধেছিলেন। অপর দিকে, বিজেপির আসন বেড়ে ৭৪ হয়েছে। তাই সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিল, তিনি মুখ্যমন্ত্রী হতে চলেছেন ঠিকই। কিন্তু, আগের মতো কি আর স্বাধীন ভাবে কাজ করতে পারবেন?

সরাসরি উত্তর না দিয়ে নীতীশ কুমার বলেন, ‘জীবনে তিনটে জিনিসের সঙ্গে কখনও কোনওরকম আপস করিনি। তা হল, অপরাধ, দুর্নীতি ও সাম্প্রদায়িকতা। এখানে কোনও পরিবর্তন এ বারেও হবে না। আমি দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে বিহারে একটি দাঙ্গার ঘটনাও ঘটেনি।’

শপথ গ্রহণ প্রসঙ্গে নীতীশ কুমার বলেন, ‘বর্তমান বিধানসভার মেয়াদ শেষ হবে ২৯ নভেম্বর। তার আগে শপথ নেওয়া মানে বর্তমান বিধানসভা ভেঙে দিতে হয়। তা ছাড়া, নতুন করে শপথগ্রহণের আগে সে ক্ষেত্রে আমাকে ইস্তফাও দিতে হবে।’ ফলে, সোমবারই শপথগ্রহণ নাকি ২৯ নভেম্বরের পর, শুক্রবার এনডিএ’র বৈঠকে সে বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে।

আরজেডি নেতা তেজস্বী যাদব গণনার ক্ষেত্রে কারচুপির অভিযোগ তুলেছেন। এ নিয়ে প্রশ্নের জবাব তিনি দিতে চাননি। নীতীশের কথায়, ‘এ বিষয়ে আমি আর কী বলব!’

এই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্ট এখানে ক্লিক করুন

Source link

Follow and like us:
0
20

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here