Latest: Yo Yo Honey Singh: মানসিক অবসাদ ও মদের নেশায় জেরবার হানি সিং, পাশে দাঁড়ালেন শাহরুখ-দীপিকা – yo yo honey singh on battling depression & alcoholism, deepika padukone and shah rukh khan helping the singer

Latest: Yo Yo Honey Singh: মানসিক অবসাদ ও মদের নেশায় জেরবার হানি সিং, পাশে দাঁড়ালেন শাহরুখ-দীপিকা – yo yo honey singh on battling depression & alcoholism, deepika padukone and shah rukh khan helping the singer

হাইলাইটস

  • দীর্ঘদিন ধরে বাজারে নেই তিনি। তাঁর কোনও গান, অ্যালবাম, ভিডিয়ো কোনও কিছুতেই দেখা যাচ্ছে না ইয়ো ইয়ো হানি সিংকে।
  • তারই সঙ্গে মদের প্রতি ভয়ংকর ভাবে আসক্তি বেড়ে গিয়েছিল তাঁর।
  • জীবনের অত্যন্ত খারাপ এবং কালো একটা অধ্যায়ের সঙ্গী হয়েছেন তিনি।

এই সময় বিনোদন ডেস্ক: ভারতীয় মিউজিকে র‍্যাপের কথা বললে অবশ্যই হানি সিংয়ের নাম সামনে আসে। কিন্তু ভেবে দেখেছেন, দীর্ঘদিন ধরে বাজারে নেই তিনি। তাঁর কোনও গান, অ্যালবাম, ভিডিয়ো কোনও কিছুতেই দেখা যাচ্ছে না ইয়ো ইয়ো হানি সিংকে। কিন্তু কেন বলুন তো? দীর্ঘদিন ধরে মানসিক অবসাদ ও মদের নেশায় আসক্ত হয়ে পড়েছিলেন হানি সিং। যদিও সেই পর্ব কাটিয়ে এখন অনেকটাই ভালো রয়েছেন তিনি।

খুব কম বসয়েই নাকোচ শুনে মানসিক অবসাদের শিকার হয়ে পড়েছিলেন হানি সিং। তারই সঙ্গে মদের প্রতি ভয়ংকর ভাবে আসক্তি বেড়ে গিয়েছিল তাঁর। জীবনের অত্যন্ত খারাপ এবং কালো একটা অধ্যায়ের সঙ্গী হয়েছেন তিনি। তবে এখন সে সব কাটিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছেন হানি সিং। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘ওটা একটা ভয়াবহ সময় আমার জীবনের। আমার মানসিক স্থিতির জন্য অনেক কিছু করা হয়েছে। তারই সঙ্গে মদ্যপ হয়ে উঠেছিলাম আমি। ঘুম আসত না, আর ধীরে ধীরে এই রোগটা আমাকে চেপে বসেছিল। আমার এটা বিশ্বাস করতেই ৩-৪ মাস সময় লেগেছে যে আমি সুস্থ নই। এটা জীবনের একটা অন্ধকার অধ্যায়। আমি সবাইকে অনুরোধ করব এটা কখনও লুকিয়ে রাখবেন না। বিশেষ করে একজন শিল্পী দর্শকের কাছে আয়নার মতো। জীবনের সব দর্শকের সামনে তুলে ধরতে পারলে এটা কেন পারব না?’

মানসিক অবসাদ এবং মদের নেশা নিয়ে নিজের নানা অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন জনপ্রিয় শিল্পী হানি সিং। তিনি বলেছেন, ‘লোকেরা আমাকে জিগ্গেস করেন, প্রায় আড়াই বছর ধরে আমি কোথায় গায়েব হয়ে গিয়েছি। তখন আমার মনে হয়েছিল যে এটা নিয়ে কথা বলা উচিত। আমি অসুস্থ ছিলাম এবং এখন আমি ভালো আছি। আমার মনে আছে আমি হৃত্বিক রোশনের জন্য ধীরে ধীরে গানটি তৈরি করছিলাম। তখনই সমস্যার শুরু হয়েছিল।’ তবে হানি সিংয়ের পাশে দাঁড়িয়েছিল তাঁর পরিবার। তিনি এ নিয়ে আরও বলেছেন, ‘গোটা পরিবার ও বন্ধুরা আমার পাশে ছিলেন। শাহরুখ ভাই ও দীপিকা পাড়ুকোন আমাকে সাহায্য করেছেন। দীপিকাও এমন পর্ব দেখেছেন নিজের জীবনে। তিনি আমার পরিবারকে দিল্লির একাধিক চিকিৎসকের নম্বর দিয়েছিলেন। ওঁরা সবাই আমার জন্যে অনেক প্রার্থনা করেছেন। এবং আমি সুস্থ হয়ে গিয়েছি।’

২০১৫ সালে দীপিকা পাড়ুকোন মানসিক অবসাদের শিকার হয়েছিলেন। দীর্ঘ চিকিৎসার পর এখন একেবারেই সুস্থ তিনি। মানসিক রোগের প্রতিকারে নিজে বিভিন্ন কাজ করেন দীপিকা। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পরও অবসাদগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে রিপিট আফটার মি’র অনলাইন প্রচার শুরু করেছিলেন দীপিকা। তিনি মনে করেন, ‘অবসাদ আর মন খারাপ এক নয়। অবসাদ একটা রোগ। যেমন ক্যান্সার, ডায়বেটিস। তাই আমি অবসাদে আছি আর আমার মন খারাপ, দুটো এক নয়।’

আরও পড়ুন: ‘ডিপ্রেশন কোনও বিলাসিতা নয়’, নাম না করেই সলমানকে তোপ দীপিকার

এই সময় ডিজিটালের বিনোদন সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link

Follow and like us:
0
20

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here