Latest: Rhea Chakraborty: EXCLUSIVE: রিয়ার বিরুদ্ধে সুশান্তের টাকা তছরূপের এখনও কোনও প্রমাণ নেই: ED – exclusive: ed says no traces of money laundering found against rhea chakraborty so far in ssr’s death case

Latest: Rhea Chakraborty: EXCLUSIVE: রিয়ার বিরুদ্ধে সুশান্তের টাকা তছরূপের এখনও কোনও প্রমাণ নেই: ED – exclusive: ed says no traces of money laundering found against rhea chakraborty so far in ssr’s death case

হাইলাইটস

  • এরপর অভিনেতার বাবা এফআইআর দায়ের করে পটনা থানায়। তদন্ত শুরু করে সিবিআই।
  • ১৪ জুন মৃত্যু হয় সুশান্ত সিং রাজপুতের। ৮ সেপ্টেম্বর গ্রেফতার হন রিয়া চক্রবর্তী।
  • সুশান্ত মৃত্যুতে মাদক যোগে প্রথমে গ্রেফতার হয় রিয়ার ভাই শৌভিক, ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডা, দীপেশ সাওয়ান্ত।

এই সময় বিনোদন ডেস্ক: সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর থেকেই তাঁর অনুরাগীরা কিছুতেই মানতে চাননি যে অভিনেতা আত্মহত্যা করেছেন। এরপর বলিউডের অন্দরে জোরদার হয় নেপোটিজম বিতর্ক। প্রথম থেকেই সুশান্ত সিং রাজপুতের প্রেমিকা হওয়ার অপরাধে সব আঙুল উঠেছিল রিয়া চক্রবর্তীর দিকেই। সকলেই একপ্রকার ধরেই নিয়েছিলেন যে, রিয়াই সুশান্তের মৃত্যুতে জড়িত। এরপর অভিনেতার বাবা এফআইআর দায়ের করে পটনা থানায়। তদন্ত শুরু করে সিবিআই।

সুশান্তের বাবা রিয়া চক্রবর্তী ও তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে আর্থিক তছরূপ ও জোর করে সুশান্তকে ড্রাগ দেওয়ার অভিযোগ এনেছিলেন। রিয়া সুশান্তের অ্যাকাউন্ট থেকে ১৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেন সুশান্তের বাবা। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করে ইডি ও এনসিবি। আলাদা করে মামলাও রুজু হয়। এরপর সুশান্ত মৃত্যুতে মাদক যোগে প্রথমে গ্রেফতার হয় রিয়ার ভাই শৌভিক, ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডা, দীপেশ সাওয়ান্ত। মঙ্গলবার গ্রেফতার হন রিয়া চক্রবর্তী। ১৪ জুন মৃত্যু হয় সুশান্ত সিং রাজপুতের। ৮ সেপ্টেম্বর গ্রেফতার হন রিয়া চক্রবর্তী।

এই মামলায় আর্থিক শোষণ এবং টাকা তছরূপের তদন্ত করছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট বা ইডি (ED)। ইডি সূত্রে খবর, এখনও পর্যন্ত এই মামলায় রিয়ার বিরুদ্ধে টাকা নয়ছয়ের যে অভিযোগ করা হয়েছে তার কোনও প্রমাণ পাননি গোয়েন্দারা। এমনকী রিয়ার পরিবারের কারও বিরুদ্ধেও কোনও আর্থিক তছরূপের প্রমাণ পাওয়া যায়নি। গত জুলাই মাসে ইডি রিয়া চক্রবর্তী, তাঁর বাবা ইন্দ্রজিৎ চক্রবর্তী, ভাই শৌভিক চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে। মা সন্ধ্যা চক্রবর্তীর বিরুদ্ধেও মামলা হয়। এই মামলায় নাম রয়েছে সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার শ্রুতি মোদি এবং প্রাক্তন বাড়ির ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডার নামও।

ইডির ঘনিষ্ঠমহলের দাবি, ‘এখনও পর্যন্ত তদন্ত অনুসারে রিয়া চক্রবর্তী কোনও আর্থিক নয়ছয় করেছেন এমন কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ইডি এখনও এমন কোনও প্রমাণ পায়নি যা থেকে বোঝা যায় সে সুশান্তের টাকা রিয়া ব্যবহার করতেন।’ ইডির এক সিনিয়র অফিসারের কথায়, ‘যা আর্থিক লেনদেন হয়েছে তা খুবই সামান্য অঙ্কের। আর যেহেতু অভিযুক্ত রিয়া চক্রবর্তী সুশান্তের লিভ ইন পার্টনার ছিলেন, তাই সংসারের খরচ বাবদ কিছু টাকার লেনদেন হয়েছে, তার বেশি কিছু না।’ সুশান্তের অ্যাকাউন্ট থেকে রিয়া বা তাঁর পরিবারের কারও অ্যাকাউন্টে কোনও বড় অঙ্কের টাকা লেনদেন হয়নি। ইডির আগে রিয়ার বিরুদ্ধে মুম্বই পুলিশও আর্থিক তছরূপের মামলা দায়ের করেছিল।

আরও পড়ুন: ‘ভয়ানক মিডিয়া ট্রায়ালের শিকার রিয়া, যেন ম্যাজিক শো চলছে মেয়েদের কেটে আধা করে ফেলার!’

এই সময় ডিজিটালের বিনোদন সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।

Source link

Follow and like us:
0
20

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here