Latest: ভিডিও বিতর্ক: ক্ষমা চাইলেন মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ মিথিলা

Latest: ভিডিও বিতর্ক: ক্ষমা চাইলেন মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ মিথিলা

শৌচাগারে গোপন ক্যামেরায় পুরুষের চিত্রধারণ করে ফেইসবুকে প্রকাশ করা নিয়ে বিতর্কের মুখে ক্ষমা চাইলেন মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ-২০২০ মডেল তানজিয়া জামান মিথিলা।

৩ এপ্রিল মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ হিসেবে মিথিলার নাম ঘোষণার পর ২০১৮ সালে দেওয়া তার এক সাক্ষাৎকারের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে ফেইসবুকে।

এতে উপস্থাপকের প্রশ্নের জবাবে তানজিয়া জামান মিথিলার সঙ্গে আরেক মডেল সামিরা খান মাহি জানান, মজার ছলে ধারণকৃত সেই ভিডিওটি তারা ফেইসবুকেও প্রকাশ করেছিলেন তারা। এই কাণ্ডকে হয়রানী হিসেবে তুলে ধরে ফেইসবুকে অনেকে প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন : মুনমুন-পলিকে মিস করছেন ময়ূরী

তোপের মুখে ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ক্ষমা চেয়েছেন মিথিলা; যদিও পরে স্ট্যাটাসটি ‘হাইড’ করে নেন বলে জানান তিনি।

মঙ্গলবার রাতে মিথিলা বলেন, “আমি যেটাই করেছি ভুল করেছি। আমি মাফ চাইছি। মানুষ ভুল করে এটাই স্বাভাবিক। কেউ ভুল করে যদি মাফ চায় তারপর তো আর প্যাঁচানোর কিছু নাই।

“মানুষ ছোট থাকতে বা অনেকে না বুঝে ভুল করে ফেলে। কিন্তু মানুষ যদি কারও কাছে মাফ চায় সেখানে আমরা মাফ করেই দিতে পারি।”

যার ভিডিওচিত্র ধারণ করেছিলেন তিনি তার কাছের বন্ধু ছিলেন দাবি করে মিথিলা বলেন, “ও যদি বিষয়টাকে হয়রানী মনে না করে তাহলে মানুষ কেন আমাকে বিচার করবে, আমি হয়রানী করেছি তাকে। তারপরও আমি মাফ চেয়েছি। আমাকে এখন ওরাই হয়রানী করছে।”

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী ১৬ মে যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিতব্য ৬৯তম মিস ইউনিভার্স ২০২০ প্রতিযোগিতার মূল মঞ্চে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করার কথা রয়েছে মিথিলার। মূল মঞ্চে যাওয়ার আগে একের পর এক বিতর্কের মুখে পড়েছেন তিনি।

ভিডিও বিতর্কের পর তার বয়স নিয়েও বিতর্ক চলছে ফেইসবুকে। মিস ইউনিভার্সের নীতিমালায় সর্বনিম্ম ১৮ থেকে সর্বোচ্চ ২৮ বছরের নারীদের অংশগ্রহণের সুযোগের কথা বলা হলেও তার বয়স সর্বোচ্চ সীমা অতিক্রম করেছে বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে এসেছে।

তবে তা অস্বীকার করে মিথিলা বলেন, “আমি আগেই আয়োজকদের পাসপোর্ট ও জন্ম নিবন্ধন দিয়ে দিয়েছি। এটা না দিয়ে আপ্লাই করা যায় না। তাদের (আয়োজক) কাছে আমার সব ইনফরমেশন আছে।

“বাংলাদেশের আয়োজকদের পাশাপাশি আমেরিকার আয়োজকদের কাছে আছে। যারা এগুলো নিয়ে বলতেছে কিংবা বানাচ্ছেন তারা ফেইক বানাচ্ছেন। কারা করতেছেন আমি জানি না।”

এর আগে মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশে আরেক প্রতিযোগী শান্তা পাল অভিযোগ তুলেছিলেন, মিথিলা নিয়ম মেনে অডিশনে অংশগ্রহণ করেননি।

গ্র্যান্ড ফিনালের দিন বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মিথিলা বলেছিলেন, ‘আমি যদি অডিশনে নাই আসতাম, আগের যে এপিসোডের অডিশনের (ভিডিও) এসেছে, সেগুলো আসত না।

“একজন মডেল হয়ে আরেকজন মডেলকে নিয়ে এই ধরনের কথা বলা একদমই ঠিক নয়। আমাদের উচিত একজন আরেক জনকে আরও সম্মান করা, যেন আরও ভালো করতে পারি।”

মিথিলার বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়ে মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশের ন্যাশনাল ডিরেক্টর শফিকুল ইসলামের কোনও বক্তব্য জানা যায়নি।

মডেলিংয়ের পাশাপাশি মিথিলা ‘রোহিঙ্গা’ নামে বলিউডের একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। ছবিটি পরিচালনা করেছে পরিচালক হায়দার খান; যিনি বলিউডের ‘দাবাং’, ‘দঙ্গল’র মতো চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন।



Source link

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here