ঢাকাTuesday , 6 September 2022
  1. Финтех
  2. অফবিট
  3. অর্থনীতি
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খেলা
  6. গ্যাজেটস
  7. চাষবাস
  8. জাতীয়
  9. ধর্মকথা
  10. ফিচার
  11. বায়োডাটা
  12. বিজ্ঞান ও পরিবেশ
  13. বিনোদন
  14. বিশেষ খবর
  15. ব্লগ

কাবুলে রুশ দূতাবাসে বিস্ফোরণ, দূতাবাসের ২ কর্মীসহ নিহত ৩

Link Copied!

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের রুশ দূতাবাসের বাইরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় দূতাবাসের দুই কর্মীসহ তিনজন নিহত এবং কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন।

সোমবার স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তা ও রাশিয়ার একটি রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

জানা যায়, হামলাকারী নিজেই বিস্ফোরক দিয়ে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিল নাকি নিরাপত্তা বাহিনী তাকে গুলি করলে বিস্ফোরণ ঘটে তা এখনো স্পষ্ট নয়।

আরআইএ নভোস্তি বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, ‘একজন রুশ কূটনীতিক ভিসার জন্য প্রার্থীদের নাম বলার জন্য দূতাবাসের বাইরে অপেক্ষমাণ ব্যক্তিদের কাছে এলে বিস্ফোরণ ঘটে।’

মস্কোর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে সংস্থাটি জানিয়েছে, ‘দূতাবাসের দুই কর্মী নিহত হয়েছেন।’

কাবুল পুলিশ প্রধানের মুখপাত্র খালিদ জাদরান বলেছেন, ‘অন্তত একজন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন এবং আরো ১০ জন আহত হয়েছেন।’

জাদরান বলেন, বিস্ফোরণের সাথে একজন আত্মঘাতী হামলাকারী জড়িত ছিল।

তিনি বলেন, ‘ওই কূটনীতিক দূতাবাসের বাইরে অপেক্ষমাণ ভিড়ের কাছাকাছি যাওয়ার আগেই নিরাপত্তা বাহিনী বোমা হামলাকারীকে শনাক্ত করে।’

জাদরান বলেন, ‘নিরাপত্তা বাহিনী হামলাকারীকে গুলি করে। হামলাকারী গুলি করার আগে বিস্ফোরণ ঘটাতে সক্ষম হয়েছিল কিনা বা বন্দুকের গুলিতে বিস্ফোরকের বিস্ফোরণ হয়েছে কিনা- তা তাৎক্ষণিকভাবে পরিষ্কার জানা যায়নি।’

জাদরান আরো বলেন, ‘তদন্ত চলছে, ওই এলাকাটি পুলিশ অবরুদ্ধ করে রেখেছে।’

রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতি অনুসারে, আফগানিস্তানের রাজধানীতে ‘রাশিয়ান দূতাবাসের কনস্যুলার সেকশনের প্রবেশদ্বারের অদূরে’ বিস্ফোরণটি ঘটে।

মন্ত্রণালয় বলেছে, ‘একজন উগ্রবাদী একটি বিস্ফোরক ডিভাইসের মাধ্যমে এই বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। হামলার ফলে রুশ কূটনৈতিক মিশনের দুই সদস্য এবং একজন আফগান নাগরিক প্রাণ হারিয়েছেন।’

বিস্ফোরণের জন্য তাৎক্ষণিকভাবে কেউ কোনো দায় স্বীকার করেনি।

তালেবান দেশটির ক্ষমতা দখলের পর থেকে এটি সর্বশেষ হামলার ঘটনা। মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনী তাদের সৈন্য প্রত্যাহারের পরে গত বছর তালেবান দেশটির দখল করার পর থেকেই ইসলামিক স্টেট (আইএস) স্থানীয় তালেবান ও বেসামরিকদের বিরুদ্ধে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। এপি/ইউএনবি