Latest: ডাক্তার দেখাতে গিয়ে কোটিপতি পূর্ব মেদিনীপুরের বাসিন্দা

Latest: ডাক্তার দেখাতে গিয়ে কোটিপতি পূর্ব মেদিনীপুরের বাসিন্দা

অনেকেই বলে ভাগ্যের চাকা কখন ঘুরবে তা হয়তো শুধুমাত্র ভগবানই জানে। কখনও ভেবেছেন আপনি চিকিৎসকের কাছে নিজের চিকিৎসার জন্য যাবেন। আর ক্যাজুয়ালি পাশে একটা লটারির দোকান থেকে লটারি কিনবেন আর হয়ে যাবেন কোটিপতি? হয়তো এরকমটা কেউ ভাবতেও পারে না।

কিন্তু এই ঘটনাই ঘটল পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথির বাধিয়ার এক বাসিন্দার সাথে। অবাক লাগছে কি ভাবছেন এটা সত্যি নয়? এরকম ভাবলে কিন্তু একদম ভুল কারণ এই ঘটনা এক্কেবারে সত্যি। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথির বাধিয়ার বাসিন্দা সেখ সাবেদ হুসেন শারিরীক অসুস্থতার কারণে চিকিৎসকের কাছে যান। এরপর তিনি হঠাৎ একটা একটি দেওয়ালী বাম্পার লটারির দোকানে যান। কি মনে হলো ওই ব্যক্তি ২০০০ হাজার টাকা করে দু’টি মোট ৪০০০ টাকা খরচ করে ডিয়ার দেওয়ালী বাম্পার লটারি কিনে ফেললেন। আর জানেন তারপর কি হলো?

আরও পড়ুন : ঝাড়গ্রামের সেনবাড়ির ঐতিহ্যের জগদ্ধাত্রী পুজোর এবার ২১৬ তম বর্ষ

ওই লটারির টিকিট দুটি ছিল দুর্ঘটনায় আহত গৃহবন্দী সেখ সাবেদ হুসেনের লাকি চাম্প। লটারি টিকিট কিনতেই কেল্লাফতে। ৪০০০ টাকার টিকিট কিনে ৫ কোটি টাকা পেলেন ওই ভাগ্যবান ব্যক্তি। শনিবার রাতে সেখ সাবেদ হুসেনকে ফোন করে জানানো হয় তাঁর কাটা লটারির টিকিটে ৫ কোটি টাকার পুরস্কার পেয়েছেন। একথা শুনে হতচকিত হয়ে গেছিলেন রীতিমতো তিনি। নিজের কানকে বিশ্বাস করতে পারছিলেন না ওই ব্যক্তি।

এরপর খোঁজ নিয়ে তিনি পুরো ঘটনাটা সত্যি তা জানতে পারেন। সেখ সাবেদ হুসেন ৫ কোটি টাকার পুরস্কার পাওয়ার পর
সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, কাঁথি শহরের চিকিৎসকের কাছে দেড় মাস আগে চিকিৎসা করাতে যান। ফেরার পথে দু’টো টিকিট কেনেন তবে সেকথা তার পরিবার জানতো না। এরপর শনিবার রাতে আসে সুখবর। রবিবার টিকিট কাউন্টারের গিয়ে সমস্ত পরিচয় পত্র দিয়ে এসেছেন।

আরও পড়ুন : হিরোর স্ত্রীর অপছন্দ হওয়ায় বাদ পড়েছি: তাপসী

তার স্ত্রী নাকি বিশ্বাসই করতে পারছে না। ইতিমধ্যেই সেখ সাবেদ হুসেনের আত্মীয়-স্বজন পাড়া-প্রতিবেশী তার বাড়িতে এসেছে তাকে অভিনন্দন জানাতে। তবে, এত লোকের আগমন তাই পুলিশ প্রশাসন বিষয়টি নজরে রেখেছে। ৫ কোটি টাকা পেয়ে খুশিতে ডগোমগো সেখ সাবেদ হুসেন। কোটি টাকা জিতে একেবারে সেলিব্রিটি তিনি।



Source link

Follow and like us:
0
20

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here