Latest: তৃণমূলে যোগ দিলেন দীপঙ্কর দে সহ টলিউডের ৪ তারকা

Latest: তৃণমূলে যোগ দিলেন দীপঙ্কর দে সহ টলিউডের ৪ তারকা

আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন ওপার বাংলার জনপ্রিয় চার তারকা। শুক্রবার ঘাসফুলের পতাকা হাতে নিলেন প্রবীণ অভিনেতা দীপঙ্কর দে, ভরত কল এবং লাভলি মৈত্র। এছাড়া তৃণমূলে যোগ দিলেন সঙ্গীতশিল্পী উস্তাদ রাশিদ খানের কন্যা শাওনা খানও। তৃণমূল ভবনে রাজ্যের মন্ত্রী ব্রাত্য বসু ও অভিনেতা সোহম চক্রবর্তীর হাত থেকে দলীয় পতাকা নেন তারা। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

শুক্রবার পশ্চিমবাংলার চলচ্চিত্র জগতের বিশিষ্ট অভিনেতা দীপঙ্কর দে ও ভরত কৌল তৃণমূলে যোগ দেন। এসময় আরও যোগ দেন ছোটপর্দার জনপ্রিয় তারকা তথা জল-নুপুর ধারাবাহিকের অভিনেত্রী লাভলি মিত্র ও সঙ্গীতশিল্পী উস্তাদ রাশিদ খানের কন্যা শাওনা খান।

তৃণমূলে যোগ দিয়ে তারা জানান, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়েই তাঁরা তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। ওই যোগদানের মঞ্চ থেকেই কৃষক আন্দোলন থেকে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান নিয়ে গেরুয়া শিবিরকে আক্রমণ করেছেন মন্ত্রী ব্রাত্য বসু।

আরও পড়ুন : ঝাড়গ্রাম রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রমে স্বামীজির তিথি-পুজো

তৃণমূলের পতাকা নেওয়ার পর প্রবীণ অভিনেতা দীপঙ্কর দে বলেন,‘আমি বহু দিন ধরেই তৃণমূলের সঙ্গে আছি। শারীরিক কারণে সব জায়গায় যেতে পারিনি এত দিন।’’ মুখ্যমন্ত্রীর প্রতি ‘দায়বদ্ধতা ও কৃতজ্ঞতা’ প্রকাশ করে বর্ষীয়ান অভিনেতা বলেন, ‘‘উনি আমাকে বঙ্গভূষণ ও বঙ্গবিভূষণ দু’টি সম্মানে সম্মানিত করেছিলেন। এটা আমার জীবনে বড় ব্যাপার। আমি যখন অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে, তখন উনি দু’বার অরূপ বিশ্বাসকে আমার খোঁজখবর নিতে হাসপাতালে পাঠিয়েছিলেন। আমার চিকিৎসার যাবতীয় খরচ সরকার বহন করেছে। অতএব আমি বেইমানি করতে পারব না। তৃণমূলের সঙ্গেই থাকব।’

শাওনা সঙ্গীতশিল্পীর পাশাপাশি সমাজকর্মীও। বহু সামাজিক কাজকর্মে তাঁর অবদান রয়েছে বলেই শোনা যায়। লাভলি মৈত্র ‘মোহর’ এবং ‘জলনুপূর’ ধারাবাহিকে অভিনয়ের সুবাদে টেলিপাড়ায় জনপ্রিয় মুখ। ‘খাদ’, ‘জুলফিকর’, ‘বাদশাহি আংটি’-র মতো বহু সিনেমায় অভিনয় করেছেন ভরত। এখনও সিনেমা-ধারাবাহিকে তাঁকে দেখা যায়।

তৃণমূলের মন্ত্রী ব্রাত্যর দাবি, ‘শুধু এই চার জন নয়, আরও অনেকে যোগদান করছেন। কিন্তু জায়গার সঙ্কুলান না হওয়ায় তাদের প্রতীকী যোগদান করানো হল।’

Source link

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here