Latest: ঝাড়গ্রামে রক্তের সঙ্কট মেটাতে উদ্যোগী তৃণমূল নেতা

Latest: ঝাড়গ্রামে রক্তের সঙ্কট মেটাতে উদ্যোগী তৃণমূল নেতা

ঝাড়গ্রাম: রক্তের হাহাকার শুরু হয়েছে ঝাড়গ্রাম জেলা জুড়ে। জেলার ব্লাড ব্যাঙ্ক গুলিতে প্রয়োজনীয় রক্ত না পেয়ে দিশেহারা অবস্থা রোগীদের বাড়ির লোকজনের। ভোটের মরশুম, সেই সঙ্গে অত্যধিক গরম। তাই সেভাবে রক্তদান শিবির হচ্ছে না। এই অবস্থায় কিছুটা রক্তের সংস্থান করতে উদ্যোগী হলেন ঝাড়গ্রাম জেলা তৃণমূলের কো-অর্ডিনেটর অজিত মাহাতো।

রবিবার ঝাড়গ্রাম শহরের স্টেডিয়াম রোডের ধারে অজিতের দলীয় কার্যালয়ে ঝাড়গ্রাম ব্লাড ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় এক রক্তদান শিবিরের আয়োজন করা হয়। অজিতের উদ্যোগে গত বছর গঠিত হয় জেলা তৃণমূলের শিল্পী সমন্বয় সংস্থা। সেই সংস্থার সদস্যরাও এদিন রক্তদান করেন। রক্তদাতাদের গোলাপ ফুল দিয়ে কৃতজ্ঞতা জানান অজিত। এদিন দুই মহিলা সহ ২০ জন রক্তদান করেন। পরে ব্লাড ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ জানান, ২০ ইউনিট রক্ত সংগ্রহ হয়েছে। জেলা তৃণমূলের কো-অর্ডিনেটর অজিত মাহাতো বলেন, ‘‘রক্তের অভাব মেটাতে জরুরি ভিত্তিতে শিবিরের আয়োজন করা হয়েছিল। আগামীতে ফের শিবির করা হবে।’’

আরও পড়ুন : গুলিতে নিহতদের পরিবারের দায়িত্ব নিলেন মমতা

‘ঝাড়গ্রাম ডিস্ট্রিক্ট ভলান্টারি ব্লাড ডোনার্স ফোরাম’-এর সম্পাদক চন্দন শতপথী জানান, রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের যুগ্ম সচিবকে (রক্তসুরক্ষা) চিঠি দিয়ে একটি বাতানুকুল ‘মোবাইল ব্লাড ডোনেশন বাস’ চাওয়া হয়েছে। রক্তের সঙ্কট মেটাতে আগামী ২২ থেকে ২৮ এপ্রিল সপ্তাহজুড়ে জেলার বিভিন্ন এলাকায় ৯টি রক্তদান শিবিরের আয়োজন করা হবে। চন্দন বলেন, “দ্রুত রক্ত সংগ্রহ করে ব্লাড ব্যাঙ্কে নিয়ে আসার জন্য বাতানুকুল ‘মোবাইল ব্লাড ডোনেশন বাস’ থাকলে খুব ভাল হয়। এই ধরনের বাসে রক্ত নেওয়ার পরিকাঠামো থাকে। জেলার ন’টি ক্লাব ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সাহায্য নিয়ে সাড়ে চারশো ইউনিট রক্ত সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে।’’

ঝাড়গ্রাম জেলার মূল ব্লাড ব্যাঙ্কটি রয়েছে জেলা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। এছাড়াও গোপীবল্লভপুর ও নয়াগ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে একটি করে আরও দু’টি ব্লাড ব্যাঙ্ক রয়েছে। জেলার তিনটি ব্লাড ব্যাঙ্কে বেশির ভাগ প্রয়োজনীয় গ্রুপের রক্ত অমিল।



Source link

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here