Latest: venus: শুক্রগ্রহে প্রাণের সন্ধান? নয়া আবিষ্কারের সম্ভাবনায় চাঞ্চল্য! – “exciting signs of possible presence of life”: scientist on venus find

Latest: venus: শুক্রগ্রহে প্রাণের সন্ধান? নয়া আবিষ্কারের সম্ভাবনায় চাঞ্চল্য! – “exciting signs of possible presence of life”: scientist on venus find

হাইলাইটস

  • হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জ এবং চিলির অ্যাটাকামা মরুভূমিতে বিশেষ টেলিস্কোপ বসিয়ে শুক্রগ্রহের মাটি থেকে ৬০ কিলোমিটার ঊর্ধ্বে মেঘের ওপরের স্তরের আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ করেছেন বিজ্ঞানীরা।
  • এই পর্যবেক্ষণের ফলেই সেখানে ফসফাইন গ্যাসের উপস্থিতি ধরা পড়েছে।

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: এই সৌরমণ্ডলে পৃথিবী ছাড়া অন্য কোনও গ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব নেই বলেই এতদিন মোটামুটি স্থির ধারণা ছিল বিজ্ঞানীদের। এই সৌরমণ্ডল পেরিয়ে আরও দূর মহাকাশের কোনও গ্রহে প্রাণের সম্ভাবনা থাকলেও তার খোঁজ এখনও পাওয়া যায়নি। যদিও পৃথিবীর আকাশে ইউএফও বা আনআইডেন্টিফায়েড ফ্লাইং অবজেক্টের দেখা মেলার দাবি রয়েছে ভুরি ভুরি। এলিয়েন বা ভিনগ্রহের প্রাণীদের নিয়ে মানুষের উত্‍সাহেরও কমতি নেই। ওরা আছে কিনা, এখনও জানা নেই, কিন্তু সাহিত্য থেকে সিনেমায় বঙ্ক‌ুবাবুর বন্ধুরা দেখা দিয়ে গিয়েছে বারবার।

এবার কি সত্যি সত্যিই খোঁজ মিলতে চলেছে তাদের? বিজ্ঞানীদের একটি সাম্প্রতিক গবেষণার ফল তেমনই জল্পনা উসকে দিয়েছে। আর তাও বহু দূর মহাকাশে নয়, এই সৌরমণ্ডলেই পৃথিবীর একেবারে নিকট প্রতিবেশী গ্রহ শুক্রেই প্রাণের সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। শুক্রগ্রহে ফসফাইন গ্যাসের অস্তিত্ব পাওয়া গিয়েছে। এই ফসফাইন গ্যাস পৃথিবীতে জৈব পদার্থ থেকে নির্গত হয়। শুক্রগ্রহে এই গ্যাস থাকার অর্থ সেখানেও জৈব পদার্থ আছে বলে মনে করা হচ্ছে।

বদলে যাবে মহাকাশের ধারণা? এক সম্পূর্ণ অন্যরকম ব্ল্যাক হোলের খোঁজ দিলেন ভারতীয় বিজ্ঞানী

হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জ এবং চিলির অ্যাটাকামা মরুভূমিতে বিশেষ টেলিস্কোপ বসিয়ে শুক্রগ্রহের মাটি থেকে ৬০ কিলোমিটার ঊর্ধ্বে মেঘের ওপরের স্তরের আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ করেছেন বিজ্ঞানীরা। এই পর্যবেক্ষণের ফলেই সেখানে ফসফাইন গ্যাসের উপস্থিতি ধরা পড়েছে। দিনের বেলা শুক্রগ্রহের তাপমাত্রা এতই বেড়ে যায় যে তা সীসা গলিয়ে দিতে পারে। শুক্রগ্রহের বায়ুমণ্ডলে বেশিরভাগটাই কার্বন-ডাই অক্সাইড গ্যাস রয়েছে।

নেচার অ্যাস্ট্রোনমি পত্রিকায় এই আবিষ্কারের কথা প্রকাশিত হয়েছে। তবে ফসফাইন গ্যাসের উপস্থিতি যে নিঃসন্দেহে সেখানে প্রাণের অস্তিত্ব প্রমাণ করে না, সেই কথাও উল্লেখ করা হয়েছে। প্রাণের উপস্থিতি না থাকলেও কী ভাবে সেখানে ফসফাইন গ্যাস প্রস্তুত হতে পারে, তা খতিয়ে দেখছেন বিজ্ঞানীরা। শুক্রের সব রহস্য যে এখনই ব্যাখ্যা করা যাচ্ছে না, সেই কথাও উল্লেখ করেছেন তাঁরা।

WATCH: ‘UFO-র দেখা পেয়েছি’, ভিডিয়ো প্রকাশ করে দাবি রুশ মহাকাশচারীর

এই নিবন্ধের প্রধান লেখক কার্ডিফ ইউনিভার্সিটির স্কুল অফ ফিজিক্স এবং অ্যাস্ট্রোনমি বিভাগের অধ্যাপক জেন গ্রিভস জানিয়েছেন যে শুধুমাত্র ফসফাইন গ্যাসের উপস্থিতির কারণে শুক্রে প্রাণ আছে বলে কখনোই সিদ্ধান্তে আসা যায় না। শুক্রের যা আবহাওয়ার পরিস্থিতি, তাতে সেখানে প্রাণ থাকা অসম্ভব বলেই এখনও পর্যন্ত মনে করছেন তিনি।

এই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্ট এখানে ক্লিক করুন।

Source link

Follow and like us:
0
20

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here